বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বগুড়া শেরপুরে দূর্বৃত্তদের হামলায় পৌর আওয়ামী লীগ নেতা অভি নিহত চোখ ওঠা রোগ ঘরে ঘরে ছড়িয়ে পড়ছে মুন্সীগঞ্জে যুবদল কর্মী শাওন নিহতের ঘটনায় বগুড়ায় বিক্ষোভ সমাবেশ নৈশপ্রহরীকে পিটিয়ে আহত করলেন বগুড়ার ইউএনও বগুড়ায় দূর্গা প্রতিমা তৈরীতে মন্ডপে মন্ডপে ব্যস্ত কারিগররা বগুড়ায় হত্যাচেষ্টার মামলায় স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল মান্নান আকন্দ কারাগারে বগুড়া সদর পুলিশ ফাঁড়ির অভিযানে ২ ছিনতাইকারী গ্রেফতার : অস্ত্র উদ্ধার শান্তির নগর রাজশাহীর সুখ্যাতি বাড়ছে বগুড়া সদর বিএনপির বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্টিত বগুড়ায় ডিবি’র অভিযানে আন্ত: জেলা ডাকাত দলের ৮ জন সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার, দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার

রোজা ভেঙে হিন্দু রোগীদের রক্ত দিলেন মুসলিমরা

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৫ মে, ২০১৯
  • ১২২৬ ভিউ টাইম

ভারতের আসামে ৩ জন ইসলাম ধর্মাবলম্বী স্বেচ্ছায় রোজা ভেঙ্গে হিন্দু ধর্মাবলম্বী ৩ রোগীকে রক্ত দিয়ে প্রাণ বাঁচিয়েছেন। এর মাধ্যমে দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে সম্প্রীতির এক অনন্য উদাহরণ উঠে এসেছে।

আসামের শোনিতপুরের বাসিন্দা মুন্না আনসারি, গোলাঘাট জেলার বাসিন্দা ইয়াসিন আলী এবং গুয়াহাটির একটি হাসপাতালের কর্মী পান্নাউল্লা আহমেদ রমজান মাসে রক্ত দান করে এমন বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। এদের মধ্যে ইয়াসিন আলী রোজা না ভেঙেই রক্ত দেন। খবর বিবিসি’র

ভারতের আসাম রাজ্যের বাসিন্দা ৮২ বছর বয়সী এক বৃদ্ধাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে জরুরী ভিত্তিতে তাকে রক্ত দিতে বলেন ডাক্তার। তার রক্তের গ্রুপ বি নেগেটিভ। কিন্তু আশেপাশে অনেক খোঁজ করেও রক্তের সন্ধান মেলেনি। এসময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের কল্যাণে মুন্না আনসারি রক্ত দিতে রাজি হন। প্রথমে তাকে জানানো হয় যে রাতে রক্ত দিলেও চলবে। কিন্তু পরে জানানো হয় যে তক্ষুণি রক্ত দিতে হবে। তখন রোজা ভেঙ্গেই হাসপাতালে গিয়ে রক্ত দিয়ে আসেন মুন্না আনসারি।

মুন্না বলেন, ‘ওরা আমাকে বলে ভেবে দেখ, রোজা ভাঙ্গতে হবে কিন্তু। আমি বলেছিলাম রোজা ভাঙ্গতে হলে হবে। তবে যদি রাতে রক্ত দিলে কাজ হয়, তাহলে রোজার শেষেই হাসপাতালে যাব, আর না হলে রোজা ভেঙ্গে দেব। তারপর রোজা ভেঙেই রক্ত দেই।’

এদিকে আসামের গোলাঘাট জেলার আরেক বাসিন্দা ইয়াসিন আলী বাবার সঙ্গে হাসপাতালে যান ওজন মাপতে। সেখানে গিয়ে এক ব্যক্তির সঙ্গে দেখা হয়, যিনি আড়াই বছরের শিশুকন্যার জন্য রক্ত খুঁজছিলেন। সঙ্গে সঙ্গেই রক্ত দিতে রাজি হয়ে যান ইয়াসিন।

ইয়াসিন বলেন, ‘যদিও আমাকে রোজা ভাঙ্গতে হয় নি সেদিন রক্ত দেওয়ার জন্য। তবে প্রয়োজন হলে ভাঙ্গতেও দ্বিধা করতাম না। কোরানেই তো আছে একজন মানুষের জীবন বাঁচানো সবথেকে বড় কাজ। তার জন্য রোজা যদি ভাঙ্গতে হয়, তাতেই বা কী যায় আসে?’

একইভাবে ভারতের গুয়াহাটির একটি হাসপাতালের কর্মী পান্নাউল্লা আহমেদও রোজা ভেঙে এক রোগির জন্য রক্ত দান করেন।

পান্নাউল্লা বলেন, ‘প্রথমে ভেবেছিলাম রোজা রেখেই রক্ত দিতে পারবো। কিন্তু রক্ত দেওয়ার পরে একটা হোটেলে ঢুকে খাওয়া-দাওয়া করে নেই। পরের দিন থেকে আবারও নিয়মিত রোজা রাখছি।’

এরইমধ্যে সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে ভারতের এই ৩ মুসলিমের মহৎ দৃষ্টান্ত। কিন্তু তারা ৩ জনই বলছেন যে, তারা একজন মানুষের প্রাণ বাঁচাতে যা করা উচিত বলে মনে হয়েছে, সেটাই করেছেন।

দয়াকরে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরী আরো খবর...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

Developed By VorerSokal.Com
newspapar2580417888