শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বগুড়া জেলার শিবগঞ্জ থানা এলাকায় অতিরিক্ত আলু গুদামজাতের বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা ঠাকুরগাঁওয়ে  বালিয়াডাঙ্গীতে শহিদ আকবর আলী আন্ত-  ইউনিয়ন ফুটবল টুর্নামেন্টে পাড়িয়া বনাম আমজানখোর এর শুভ উদ্বোধন করেন – দবিরুল ইসলাম এমপি। বগুড়া শিবগঞ্জ উপজেলা কৃষকলীগের উদ্যােগে কেন্দ্রীয় নেতাকে ফুলেল শুভেচ্ছা মহাস্থান প্রেসক্লাবের সভাপতিসহ ৪ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে প্রতিবাদ নিয়ামতপুর প্রেসক্লাবের নয়া সভাপতি শাজু, সম্পাদক সিরাজুল চারঘাটে ভাইকে ফাঁসাতে বাড়ি দখলের মামলা বগুড়ায় বাংলাদেশ অনলাইন নিউজ পোর্টাল এসোসিয়েশন বনপা’র ৮ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত ত্রিশাল অনলাইন প্রেসক্লাবের সাংবাদিকবৃন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান মতিন সরকারের শারীরিক খোঁজ নিলেন ঠাকুরগাঁওয়ে  রাণীশংকৈলে সরকারী হাটগুলোতে অতিরিক্ত হাসিল আদায়ের অভিযোগ ঠাকুরগাঁওয়ে ক্লিনিকে অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ ।

ঠাকুরগাঁওয়ে ক্লিনিকে অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ ।

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৪ অক্টোবর, ২০২০
  • ৪০ ভিউ টাইম
 মোঃ মজিবর রহমান শেখ ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি:
ঠাকুরগাঁও শহরে ফ্রেন্ডস এ্যাপোলো নামে একটি বেসরকারি হাসপাতালে অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে বলে পরিবার অভিযোগ করেছে। মাহবুবা আক্তার (২২) নামে এই প্রসূতি ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের শাসর গ্রামের সাদেকুল ইসলামের স্ত্রী। সাদেকুল ইসলামের অভিযোগ, অস্ত্রোপচারের পর তার স্ত্রীর দিকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ যথাযথ নজর দেয়নি। সাংবাদিকদেরকে তিনি বলেন, ১২ অক্টোবর  সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে শহরের ফ্রেন্ডস এ্যাপোল হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চিকিৎসক আবিদা সুলতানা তার স্ত্রী মাহবুবার অস্ত্রোপচার করেন। মাহবুবার ছেলেসন্তানের জন্ম হয়। এর কিছুক্ষণ পর মাহবুবার রক্তক্ষরণ শুরু হয়। “ক্লিনিকে কর্মরত নার্সদের একাধিকবার বিষয়টি বললেও তাদের কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। ক্লিনিকের নার্স ও কর্তৃপক্ষ সেবা না দিয়ে উল্টো তারা আমাকে অকথ্য ভাষা গালিগালাজ করেন। প্রায় দুই ঘণ্টা পর একজন নার্স এসে আমাকে এক ব্যাগ রক্ত আনতে বলেন। তাৎক্ষণিক রক্ত যোগাড় করে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের কাছে দেওয়া হলে তারা সেই রক্ত আমার স্ত্রীকে দেন। তার পরও কোনোভাবে রক্তক্ষরণ বন্ধ হচ্ছিল না।“অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে ১৩ অক্টোবর   মঙ্গলবার বিকেলে আমার স্ত্রীর শারীরিক অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। এ সময় কর্তৃপক্ষ রোগীকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলে। তাৎক্ষণিকভাবে একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে মাহবুবাকে দিনাজপুরে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান।”সাদেকুল ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে উদাসীনতা ও অবহেলার অভিযোগ তুলে এর বিচার দাবি করেছেন। এ ঘটনায় তিনি মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানান। এ বিষয়ে চিকিৎসক আবিদা সুলতানা বলেন, “অপারেশন অনেক ভাল হয়েছে। অপারেশনের পর বাচ্চা ও মা সুস্থ ছিলেন। কিন্তু অপরাশেন পরবর্তী ক্লিনিকে অব্যবস্থাপনার কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।”ঐ হাসপাতালের মালিক বাবলুর রহমান বাবলু   সাংবাদিকদেরকে বলেন, “বিষয়টি আমি শুনেছি। আমি এখন কিছু করতে পারছি না। কারণ এই মুহূর্তে আমি ঢাকায় আছি।”

দয়াকরে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরী আরো খবর...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

Developed By VorerSokal.Com
newspapar2580417888