রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ০৬:৪০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
গ্রামিন ব‍্যাংক, ব্রাক, আশা, শক্তি সহ কিছু এনজিও সরকারী নির্দেশ অমান্য করে মাঠ কর্মিদের সাথে কিস্তি আদাইয়ের মতবিনিময় !-ভোরের সকাল বগুড়ার বারপুরে নিখোঁজের ২দিন পর ধান ক্ষেতে যুবকের লাশ উদ্ধার দুপচাঁচিয়া পৌর মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের বরখাস্তের আদেশ সুপ্রীম কোর্টে বহাল বগুড়ার শিবগঞ্জে ভূমি কম্পে প্রাচীর চাঁপা পড়ে প্রাণ গেল সিয়াম নামের এক শিক্ষার্থী বগুড়ার শিবগঞ্জে হত্যা মামলার আসামির গাড়ি ব্যবহার করছেন এএসপি!-ভোরের সকাল বগুড়া তরমুজ বিক্রি হচ্ছে কেজিতে- বিপাকে কৃষক ভোগান্তি !-ভোরের সকাল জয়পুরহাটে ডিবি পুলিশ কর্তৃক বসত বাড়ি থেকে ফেন্সিডিল উদ্ধারসহ ০১ জন গ্রেফতার !-ভোরের সকাল পাঁচবিবি থানায় স্কুল ব্যাগে বহন কালে ফেন্সিডিলসহ আটক-০৩!-ভোরের সকাল প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ বোয়ালমারীতে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ শুরু

বগুড়া তরমুজ বিক্রি হচ্ছে কেজিতে- বিপাকে কৃষক ভোগান্তি !-ভোরের সকাল

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৬ এপ্রিল, ২০২১
  • ৪৪ ভিউ টাইম

 আতাউর রহমান বগুড়া জেলা প্রতিনিধিঃ

বগুড়া সুস্বাদু রসালো মৌসুমী ফলের মধ্যে তরমুজ অন্যতম।কিন্ত কেজি দরে মেপে বিক্রয়ের সিন্ডিকেড ব্যবসায়ীদের আকাশচুম্বী দামের হেরফের জন্য অনেকের পক্ষে তরমুজ কিনে খাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। তরমুজের মধ্যস্তভোগী একটি ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। পান্তিক কৃষক সারা বছরের কস্টের ফসলের ন্যায্য দাম পাচ্ছে না, অন্যদিকে ভোক্তারা আকাশচুম্বী দামের জন্য অনেকের পক্ষে এই মৌসুমী ফল কিনে খাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। ব্যবসায়ী সুযোগ পেয়েছে মাহেরমজান এবং বৈশাখের তপ্তরৌদের তীব্রতা যতই বাড়ে ব্যবসায়ীরা তরমুজের দাম ততই বাড়িয়ে দেয়।পান্তিক চাষীদের কাছ থেকে পুরো একটি তরমুজ পাইকারি কিনে ৪০ / ৫০ টাকা এবং শ-হিসাবে কিনেন নেওয়া হয় অথচ ঐ তরমুজ ভোক্তার কাছে ঢাকা সহ বিভিন্ন বিভাগীয় শহরে কেজি হিসাবে বিক্রি করা হয়। প্রতি কেজি তরমুজের দাম ৫৫ / ৬০ টাকা তাতে একটা তরমুজের দাম পড়ে ৪০০ /৫০০ টাকা । এটা বড়ই অনিয়ম দুর্নীতি দেখার জন্য ভোক্তা আধিকার ফাউন্ডেশন কি ভূমিকা রাখছে জনমনে তাই প্রশ্ন। কৃষকের উৎপাদিত প্রতিটি পণ্য কৃষক ন্যায্যমূল্য পায় না। পান্তিক কৃষকের দামে আর ভোক্তার দামের পাথক্য অনেক বেশী। অর্থনৈতিক ভাবে কৃষক নির্যাতিত প্রতারিত হয়। অন্যদিকে ফলের দাম আকাশ পাতাল হের ফের হওয়ার কারণে অধিকাংশ ভোক্তাদের কিনে খাওয়ার সামান্য থাকে না। প্রতিটি ফল ওফসলের ক্ষেত্রে কৃষকরা ন্যায্য দাম থেকে বঞ্চিত হয়। মধ্যস্তভোগী দালাল বা ফইরারা গরীব কৃষক ও ভোক্তার ভাগো কুড়াল মারে। সরকারের উচিৎ কৃষক ও ভোক্তার মাঝে দামের সমন্বয় ঘটিয়ে যাতে কৃষক ন্যায্য দাম পায় এবং ভোক্তা ন্যায্য মূল্যে কিনে মৌলিক চাহিদা পূরণ করতে পারে ।আমরা দেখেছি এক সময় বগুড়ায় – বেগুনের দাম ২ টাকা কেজি ঢাকায় ঐ বেগুন তখন ৪০ টাকা কেজি । দামের এ অরাজকতা, দুর্নীতি,অত্যাচার থেকে কৃষক ও ভোক্তাদের মুক্তি দিতে হবে। ভোক্তাদের মৌলিক অধিকার ফিরিয়ে একান্ত প্রয়োজন। তরমুজ ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেট ভাঙ্গার জন্য প্রশাসনিক সহযোগিতা প্রয়োজন ।

দয়াকরে নিউজটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরী আরো খবর...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

Developed By VorerSokal.Com
newspapar2580417888